139 

মুসলিম খান, লন্ডন: ইসলামিক স্টেটে (আইএস) যোগ দেওয়া বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ তরুণী শামীমা বেগম নতুন করে বিশ্ব গণমাধ্যমের শিরোনাম হলেন।

সম্প্রতি গণমাধ্যমে শামীমার কয়েকটি ছবি নিয়ে খবর প্রকাশিত হয়েছে। সিরিয়ায় যাওয়ার পর বোরকা পরিহিত অবস্থায় দেখা গিয়েছিল শামীমাকে। কিন্তু নতুন প্রকাশিত ছবিতে শামীমাকে ফের পশ্চিমা পোশাক ও সানগ্লাসে দেখা গেছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম মিরর ও দ্য টেলিগ্রাফ জানিয়েছে, শামীমা বেগম ছবি তোলার অনুমতি দিলেও কোনও কথা বলতে রাজি হননি।

মাত্র ১৫ বছর বয়সে আইএসে যোগ দিয়ে সিরিয়ায় গিয়েছিলেন শামীমা। এখন তাঁর বয়স ২১। সিরিয়ায় গিয়ে এখন নিজ দেশ ব্রিটেনে ফেরার অধিকার হারিয়েছেন শামীমা।

জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসে যোগ দেওয়া ব্রিটিশ তরুণী শামীমাকে সিরিয়া থেকে নিজ দেশে ফেরার ও নাগরিকত্ব টিকিয়ে রাখার মামলা লড়তে অনুমতি দেননি ব্রিটেনের সুপ্রিম কোর্ট। যদিও শামীমাকে দেশে ফেরার অনুমতি না দেওয়ায় ব্রিটেনের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ তুলেছেন অনেকে।

গত মাসে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছেন, শামীমা ব্রিটেনে ফিরতে পারবেন না। মানবাধিকার কর্মীরা এ সিদ্ধান্তকে ‘অসম্মানজনক’ বলে আখ্যা দিয়েছে।

পূর্ব লন্ডনের বেথনাল গ্রিন একাডেমির ছাত্রী শামীমা বেগম ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে আরও দুই বান্ধবীসহ সিরিয়ায় পাড়ি দেন। শামীমা সিরিয়ায় আইএস-নিয়ন্ত্রিত এলাকায় যাওয়ার কিছুদিনের মধ্যে এক আইএস যোদ্ধার সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। এরপর ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় আল-হওর শরণার্থী শিবিরে শামীমার দেখা পান এক ব্রিটিশ সাংবাদিক। সাক্ষাৎকারে শামীমা যুক্তরাজ্যে ফিরে আসার আকুতি জানান। শামীমা সে সময় ব্রিটিশ গণমাধ্যমগুলোর প্রধান শিরোনাম হন।

শামীমা যুক্তরাজ্যে ফেরার ইচ্ছে পোষণ করেন। কিন্তু, তৎকালীন ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে শামীমা বেগমের ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিল করেন। ফলে যুক্তরাজ্যে ফেরার পথ বন্ধ হয়ে যায় শামীমার।

তারপর থেকেই ব্রিটিশ নাগরিকত্ব টিকিয়ে রাখতে আইনি লড়াই শুরু করেন শামীমা। ২০১৯ সালে ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট ও স্পেশাল ইমিগ্রেশন আপিল কমিশনে আবেদন করেন তিনি। সেই আপিলের শুনানি শেষে ২০২০ সালে ফেব্রুয়ারিতে রায় শোনান আদালত।

রায়ে শামীমার নাগরিকত্ব বাতিলের সিদ্ধান্তকে বৈধ বলে রায় দেন আদালত। আদালত বলেন, ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিলের ফলে শামীমা বেগম রাষ্ট্রহীন হয়ে যাননি। মা-বাবা বাংলাদেশি বলে তিনি বাংলাদেশের নাগরিকত্ব দাবি করতে পারেন।

ফলে ব্রিটিশ নাগরিকত্ব ফিরে পাওয়ার প্রাথমিক লড়াইয়ে হেরে যান শামীমা বেগম। যুক্তরাজ্যের জাতীয় নিরাপত্তা-সংশ্লিষ্ট মামলার বিচারকাজ হয়, এমন আংশিক গোপন আদালত—দ্য স্পেশাল ইমিগ্রেশন আপিল কমিশনে শামীমার নাগরিকত্ব বাতিলের বৈধতা নিয়ে করা চ্যালেঞ্জের বিষয়টির শুনানি হয়।

আদালত সে সময় রায়েও একই ধরনের কথা বলেন,

আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী, কোনও ব্যক্তিকে রাষ্ট্রহীন করার সুযোগ নেই। তবে ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিলের ফলে শামীমা রাষ্ট্রহীন হয়ে যাননি। তিনি ‘বংশগতভাবে বাংলাদেশের নাগরিক’।

আদালত আরও বলেন, নাগরিকত্ব বাতিলের আগে শামীমা বেগম স্বেচ্ছায় যুক্তরাজ্য ছেড়ে গেছেন। তাই নাগরিকত্ব বাতিলের সিদ্ধান্তের কারণে তিনি যুক্তরাজ্যের বাইরে অবস্থান করছেন’ বিষয়টি এমন নয়।

বর্তমানে উত্তর সিরিয়ার ক্যাম্প রোজ শরণার্থী শিবিরে অবস্থান করছেন শামীমা। তিনি আপিলে যুক্তি দেখিয়ে বলেছিলেন, তাঁর ব্রিটিশ নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়া হলে শরণার্থী শিবিরের মানবেতর পরিবেশেই তাঁকে আটকে থাকতে হবে। আর এ পদক্ষেপ ইউরোপীয় কনভেনশনের আওতায় তাঁর মানবাধিকারেরও পরিপন্থি হবে। কিন্তু আদালত তাঁর এ যুক্তি প্রত্যাখ্যান করে বলেন, শামীমা যে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন, তা তাঁর নিজের দোষে। নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে তাঁকে এ দুর্দশায় ঠেলে দেওয়া হয়নি বা তাঁর মানবাধিকারও লঙ্ঘন করা হয়নি।

এরপর শামীমা বেগমের আইনজীবী আদালতের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে জরুরি ভিত্তিতে আপিল প্রক্রিয়া শুরুর কথা জানান।

ব্রিটিশ কোর্ট অব আপিল গত বছরের জুলাইয়ে রায় দেন যে, শামীমা নাগরিকত্ব বাতিলের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করার জন্য ন্যায্য সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। কেননা, শিবির থেকে মামলার কাজে ঠিকভাবে অংশ নিতে পারেননি তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *