200 

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  দিরাইয়ের সরকারী বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের এক মেধাবী ছাত্রীকে যৌন নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবীতে ক্রমশ উত্তপ্ত হয়ে উঠছে দিরাই শহর। বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উক্ত ঘটনায় প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছাত্রলীগ নেতা সোহেল মিয়া ও তার ভাই অভিকে অভিলম্বে গ্রেফতারের দাবী জানান।

স্কুল ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ, বখাটে অভি দীর্ঘদিন ধরে মেয়েটিকে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। বৃহস্পতিবার উপ-বৃত্তির অনলাইন কাজের জন্যে স্থানীয় সেন মার্কেটে গেলে ওই ছাত্রীকে শারিরীকভাবে লাঞ্চিত করে অভি। এ সময় মেয়েটি চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন জড়ো হন। তখন ছাত্রলীগ নেতা সোহেল মেয়েটির মুখ অ্যাসিড দিয়ে ঝলসে দেয়ার হুমকি দেয়। এ ঘটনা কাউকে না জানাতেও চাপ দেয়।

এদিকে মেয়েটির বাবা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘উত্ত্যক্তের বিষয়ে অভির পরিবারকে আগেই জানানো হয়েছিল। কিন্তু অতীতে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এ ঘটনার পর তার পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।’

দিরাই থানার ওসি আজিজুর রহমান বলেন, সেন মার্কেটের সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করে আমরা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হয়েছি। আসামিরা পলাতক। তাদের ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে।

এদিকে দিরাইয়ে স্কুলছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা সোহেল মিয়া ও তার ভাই অভিকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে ডাকসুর ভিপি নূরুল হক নূরের সংগঠন।

আজ রবিবার ভিপি নুরের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ সুনামগঞ্জ জেলা শাখা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই দাবি জানায়।

সংগঠনের দপ্তর সম্পাদক তোফায়েল আহমেদ তারেক সাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে, স্কুলছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের ঘটনা তদন্ত করে আসামীদের গ্রেফতার করার দাবি জানানো হয়। সেই সঙ্গে ভুক্তভোগী পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিতের আহবান জানায় সংগঠনটি।

উল্লেখ্য,গত বৃহস্পতিবার দুপুরে দিরাই থানা পয়েন্টস্থ সেন মার্কেটে এক স্কুল ছাত্রীকে লাঞ্ছিত করার ঘটনা ঘটে। এসময় লাঞ্ছিত হওয়ার বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে এসিড দিয়ে মুখ ঝলসে দেওয়ার হুমকি দেন বখাটের চাচাতো ভাই সোহেল মিয়া। আর স্কুল ছাত্রীকে লাঞ্ছিত করে সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ সদস্য নাজমুল হকের ছেলে অভি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *