186 

শামীমুল হক, লন্ডন প্রতিনিধি: ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের মুসলিম বিদ্বেষী মন্তব্যের সমালোচনা করতে অস্বীকার করেছেন দেশটির অর্থমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ।

গত বছর ব্রিটিশ দৈনিক টেলিগ্রাফে লেখা এক নিবন্ধে বোরকা পরা মুসলিম নারীদের লেটারবক্স ও ব্যাংক ডাকাতের সঙ্গে তুলনা করেছিলেন বরিস জনসন।

এক নির্বাচনী প্রচারে এ নিবন্ধের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে সাজিদ জাভিদকে।

এ ঘটনার প্রেক্ষাপটে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির সমালোচনা করেছে ব্রিটেনের মুসলিম কাউন্সিল।

একইসঙ্গে এ ঘটনায় টরিদের মধ্যে ইসলামবিদ্বেষী ঘটনা অস্বীকার, খারিজ ও শঠতার আশ্রয় নেয়া হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে।

মুসলিম কাউন্সিলের এক মুখপাত্র বলেন, আমরা ইসলামবিদ্বেষের হুমকিতে রয়েছি। এই ইস্যু কনজারভেটিভ পার্টিতে প্রকট আকারে রয়েছে। কিন্তু এসব অস্বীকার ও খারিজ করে আসছে দলটি।

তিনি আরও বলেন, একটা বড়সংখ্যক মুসলমানের কাছে বিষয়টি ব্যাপকভাবে পরিষ্কার যে কনজারভেটিভ পার্টি ইসলামবিদ্বেষকে আশ্রয় দিচ্ছে। সমাজে তা তিক্তভাবে ছড়িয়ে পড়ার সুযোগ করে দিচ্ছে। এ ধরনের বর্ণবাদ উৎখাত করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতেও দলটি ব্যর্থ হয়েছে।

মুসলিমবিদ্বেষের মতো বর্ণবাদের প্রশ্রয় কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন দলটি বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এদিকে মুসলিম কাউন্সিলের সমালোচনা নাকচ করে দিয়ে বরিস জনসন সাংবাদিকদের বলেন, তিনি এসব দাবির সঙ্গে একমত না।

বরিস জনসনের পক্ষ নিয়ে সাজিদ জাভিদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী ব্যাখ্যা দিয়েছেন যে কেন তিনি এসব শব্দ ব্যবহার করেছেন। নিবন্ধটিতে তিনি নারীর অধিকার নিয়ে কথা বলতে চেয়েছেন। মুসলমান কিংবা অন্যান্য নারী যা-ই পরুক না কেন, তিনি সেই ব্যাখ্যা দিয়েছেন। আমি মনে করি, তিনি যথাযথ বৈধ ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *